Kolkata’s love for food is legendary. Here is a look into some of the local favorites. Read about the traditional favorites and some from around the globe. Kolkata  loves to experiment with food and yet at the same time give it a unique bengali flavour. Enjoy this mouth watering post!

কথায় বলে “শখের প্রাণ গড়ের মাঠ’.. কলকাতার ফুড- পাথ ধরে হাটলে, বচনটা যে মিছে নয় তা  বেমালুম বোঝা যায়। রানী Victoria ছিলেন সেটা past tense. তার মেময়র থাকা তিনশো বছরের শহর, আজ শত্তুরের মুখে ছাই দিয়ে সাবালক! ভোজন রসিক ও বটে ! এবং যা রটে তার কিছুটা বরাবরই ঘটে। হ্যা ঘটে!  health conscious বাঙালি calorie bomb কে ক্যাচকলা দেখিয়ে  দিব্য”খ্যাদ্য রসিক”তকমাটাকে নোবেল পদকের মতই যত্নে রেখেছে। যাকে বলে লোভে পাপ পাপে মুক্তি “.

Kolkata street food C/O কলকাতা ফুডপাথ (Kolkata Food Path)

চোখের সামনে সহর Calcutta থেকে Kolkata হল. চা প্রাণ বাঙালি দেখল কফি শপের ঘনঘটা. তবু উকি মেরে খোচা দেয় বাঙালির খ্যাদরশিক চেতনা! উত্তর কলকাতার মিষ্টির দোকানে, মাছির চেয়ে বেশি মানুষই ভন ভন করে। মিষ্টি নাকি বঙ্গ জীবনের অঙ্গ! ব্লাড সুগার যতই ‘জুজু’ হয়ে জিভ ভ্যাংচাক, মিষ্টি বং রসনার জিনি! তাকে আমরা স্বাদে চিনি এবং কিনি। জেন ওয়াই ফাস্ট ফুড ভক্ত। তাদের উদরে ফাস্ট ফুডই পোষ মানে ভালো। কচুরি থেকে তেলেভাজা : বাঙালি খাচ্ছে, খাবে।  কবে থেকে ,সেটা চিত্রগুপ্তর ট্যাব ঘাটলেই  বার হবে।

Phuchka1 1 C/O কলকাতা ফুডপাথ (Kolkata Food Path)

এই Post Colonial কলকাতায়, আজ Italian থেকে Chinese সবই Multiculture পতাকা তন্ত্রকে সেলাম জানিয়ে দিব্যি যাকে বলে ‘শান্তি পূর্ণ –সহাবস্থান’ করছে (peaceful coexistence)। আপনি জাপানে যা পান? এখানেও তাই পান! সব মিলিয়ে অবাক জলপান! শুক্তো আর বড়ির কেমিস্ট্রি কিম্বা চপ আর মুড়ি কবে যেন হামাগুড়ি দিয়ে হেঁশেল কব্জা করে বসেই আছে। কোনো বাঙালী প্রাণ বঙ কে কাতুকুতু না দিলেও স্বীকার করবে যে অস্ট্রিয়ান “সু ” কে কলকাতায় ডাকলে  আগেই ঘেটি ধরে মিষ্টি দই, মাছ ফুচকা আর রসোগোল্লা খাওয়াবে! বাঙালির লুচি আসলে তার রুচির প্রেম। বিয়েবাড়ি বা ছুটিবার রোবার -লুচি যেন  বামপন্থায় বিশ্বাসী। ছিল, থাকবে ! Hats off to Bong spirit: for the sheer love of food!

56 224778 kewpie s kitchen1 C/O কলকাতা ফুডপাথ (Kolkata Food Path)

মাছ -(Fish)এমন একদিন আসবে , আসবেই, যেদিন খোকা খুকুরা হিস্ট্রি বইতেই এই বিলুপ্ত প্রাণীর কথা পড়বে। নিমবেলা থেকে ঘাটবেলা, এবেলা ,ওবেলা ফিশের ডিশ চাই, চাই।বাঙালি মাছকে এতই ভালবাসে যে রেগে গিয়ে কাউকে ‘মুরগি’ অথবা ‘ছাগল ‘ বলবে ,তবু  মাছ বলবে না! অথচ হেজী পেজি চোখ দেখলে মরা মাছের চোখ ঠিক বলবে।ভাবো! হীরক রাজা একটু ইয়ে ছিলেন ! শুধু  শুধু  গবেষক দিয়ে অত কাণ্ড করলেন! মাছ ভাত খাওয়ালেই হত। প্রজারা সিম্ফনি মেনেই বলত : মাছ ভাত খাওয়ালেন, তার সঙ্গে পান, হীরকের রাজা সত্যি ভগবান  (ব্রিগেডে যেমন হয়।)

Bengali 3 C/O কলকাতা ফুডপাথ (Kolkata Food Path)

 

যে কোনো Tea টেস্টটারের চাকরিতে কাঁচি চালানোর ট্যালেন্ট আছে বংদের। দার্জিলিং হোক, অসম হোক বা গ্রীন : কিছুকেই ছাড়বে না বাঙালী। খেয়েই ফ্লেভার বলে দিতে পারে এমন বং ও আছে।  আবার চায়ের সাথে ‘টা ‘ ও আছে। আর সেই চা আর টা নিজেদের মধ্যে equation বানিয়ে এমন ইয়ে বানিয়েছে যে কলকাতায় ‘tea junction’ এখন হিট।

আচ্ছা এমন কোনো বাঙালি আছে, যে  ন্যাপি পরা হ্যাপি বয়সে ঘাপটি মেরে খাটের তলায় সেধিয়ে কূলের আচার চুরি করেনি ? নাকি সবজি কিনে মানুষ যখন ভল্টে রাখার কথা ভাবছে তখনও ইলিশ কিনে খ্যাটন দিচ্ছে ! বাঙালি পারে! বল বল বল সবে , বঙ্গ  আবার খাদ্য সভায় শ্রেষ্ঠ আসন লবে ! একবার নাকি এক সো-কল্ড পাগল হাওড়া ব্রিজটাকে পিতৃ দেবের সম্পত্তি মনে করে উঠে পরে চূড়ান্ত বাওয়ালী দিচ্ছিল। কোন  উৎকট আনন্দ পাচ্ছিল তা মা গঙ্গাই জানেন। আর খাই খাই নিয়ে বাঙালি পাগলামো করলে সেটা দোষের নয় ? ভারি অন্যায় !

images C/O কলকাতা ফুডপাথ (Kolkata Food Path)

বাঙালির খাওয়ার বিপ্লব জিন্দাবাদ ! সাতকাহন হয়ে যায় এই নিয়ে। শেষে বলি যতই ক্লাস নিয়ে কথা হোক , আর কিছু দুষ্টু লোক ঘোট পাকাক ; লাস্ট ওয়ার্ড বলবে টেস্ট! টেস্টের আমি  টেস্টের  তুমি , তাই দিয়ে যায় চেনা।

 

আদৃতা দে ঘটক

ছবি সৌজন্য : খাদ্য রসিক কলকাতা 
পেটপুজো
 ফুচকা 
   মাছ 
শুধু খাওয়ার জন্য